মনু ও ধলাই পাড়ের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের স্থায়ী সমাধানের লক্ষ্যে মৌলভীবাজরে অবস্থান কর্মসূচী পালন

জুলাই ০৫ ২০১৮, ১৩:০৫

ষ্টাফ রিপোর্টার :মনু ও ধলাই পাড়ের বণ্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের স্থায়ী সমাধানের লক্ষ্যে গত ৪ জুলা্ই বুধবার সকাল ১১টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত মৌলভীবাজার শহরের ওয়াপদা রোডস্থ পানি উন্নয়ন বোর্ডের সম্মুখস্থ সড়কে মনু ও ধলাই পাড়ের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ জনগোষ্ঠী অবস্থান কর্মসূচী পালন করেছে । এর আগে অবস্থান কর্মসূচীকে সংহতি জানিয়ে শহরের চৌমোহনা, কুসুমবাগ, পশ্চিমবাজারসহ গ্রাম অঞ্চল থেকে লোকজন মিছিল সহকারে পানি উন্নয়ন বোর্ড কার্যালয়ের সম্মুখে এসে উপস্থিত হয়।

মৌলভীবাজারের মনু ও ধলাই বাঁচাও অবস্থান কর্মসূচীতে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নেছার আহমদ,পৌর মেয়র ফজলুর রহমান,সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মো:মিজানুর রহমান মিজান,প্রেসক্লাব সভাপতি আবদুল হামিদ মাহবুব, জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক সৈয়দ নওশের আলী খোকন জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট রাধাা পদ দেব সজল, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি শান্তি পদ ঘোষ,সি আই পি এম এ রহিম শহিদ,জেলা পরিষদ সদস্য হাসান আহমদ জাবেদ,এডভোকেট ডাডলী ডেরিক প্রেন্টিস,সাংস্কৃতিক কর্মী আসম সালেহ সোহেল, বিজনেস ফোরামের সভাপতি মো: নুরুল ইসলাম কামরান, সাধারণ সম্পাদক মো: সুমন আহম্মদ, বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক জাকের আহমদ (অপু),সিপিবির জেলা সাধারণ সম্পাদক নিলিমেষ  ঘোষ বুলু,জেলা জাসদের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন নজরুল, জেলা ওয়ার্কাস পার্টির সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য সৈয়দ আমিরুজ্জামান,সিলেট ভূমি সন্তানের সমন্বয়ক মো. আশরাফ হোসেন, লাউয়াছড়া বন ও জীববৈচত্র্য রক্ষা আন্দোলনের যুগ্ম আহ্বায়ক জাবেদ ভূঁইয়া,জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সহ সভাপতি রনি পাল, শেখ বুরহান উদ্দিন ইসলামি (র:) ইসলামি সোসাইটির চেয়ারম্যান এম মুহিবুর রহমান মুহিব, বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও নাট্যকার খালেদ চৌধুরী, আদর মাদকাসক্তি চিকিৎসা ও পূনর্বাসন কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক নিখিল তালুকদার,দুর্জয় ক্লাবের সভাপতি চৌধুরী মেরাজ প্রমুখ।

(ঝুমুর রায়ের ফেসবুক দেয়াল থেকে সংগ্রহকৃত ভ‌িডিও প্রতিবেদটি দেখতে ক্লিক করুন )

এছাড়া অবস্থান কর্মসূচীকে সফল করতে গত দুইদিন ধরে দাবি-দাওয়া সম্বলিত প্রচারপত্র বিলি করা হচ্ছে মৌলভীবাজার শহরসহ আশেপাশের ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাগুলোতে। প্রচারপত্র সূত্রে জানা যায়, দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত মৌলভীবাজার একটি বন্যাপ্রবণ এলাকা। উজানে ভারী বৃষ্টিপাত হলে এই জেলার ভেতর দিয়ে প্রবাহিত নদীসমূহের ধারণক্ষমতা হ্রাস, নদ-নদীর বন্যা প্রতিরক্ষা বাঁধসমূহ নিয়মিত মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণসহ স্থায়ী বন্যা প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণে প্রায় প্রতিবছরই মনু, ধলাই ও কুশিয়ারা নদীর বাঁধের কোথাও না কোথাও ভাঙন দেখা দেয়। এসময় ঘরবাড়ি, ফসলের ক্ষেত, গোবাদি পশু ও রাস্তাঘাট ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। এবছর মনু নদীর পানি বিপদসীমার সর্বোচ্চ ১৮১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় শহর রক্ষা বাঁধ চুঁয়ে শহরে পানি প্রবেশ করেছে। এছাড়া এই তিন নদীর ২৫টি স্থানে ভাঙনের কারণে ৩ লক্ষাধিক মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। তাই “মনু বাঁচাও, ধলাই বাঁচাও, বাঁচাও প্রতিবেশ, বন্যা সমস্যা সমাধানে জোড়াতালি নয়, স্থায়ী সমাধান চাই” শ্লোগান সহ চাইসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আন্দোলনে নেমেছে মনু ও ধলাই পাড়ের জনগোষ্ঠী।

এরপর আর কত ক্ষতিগ্রস্ত হবে এ অঞ্চলের মানুষ। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে পানি বিজ্ঞানের সূত্র অনুসরণ করে নদ-নদীকে আতঙ্কের পরিবর্তে সম্পদ, উন্নয়ন ও সৌন্দর্যের ক্ষেত্র করা হয়েছে। নৌপথে যোগাযোগ, মৎস্য উৎপাদন ও কৃষি চাষে নদ-নদীর পানি মানুষের জীবনধারাকে সহজ করে তুলেছে। আমরা তাই বন্য ভীতি থেকে বেরিয়ে আসতে চাই। তাই আমাদের দাবি হচ্ছে মনু ও ধলা নদী খনন এবং স্থায়ী বাঁধ নির্মাণে প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন, জেলার অন্যান্য নদ-নদী ও হাওরের ভরাট বিলসমূহ খনন করতে হবে। এসব নদীকে আতঙ্কের কারণ নয় বরং সম্পদে রুপানাতর করা হউক।

  •