• ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ , ১৯শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি

বড়লেখায় পল্লী বিদ্যুৎ কার্যালয়ে তালা

admin
প্রকাশিত জুন ২৬, ২০১৯
বড়লেখায় পল্লী বিদ্যুৎ কার্যালয়ে তালা

 নিজস্ব প্রতিবেদকঃঃ বড়লেখা ও কুলাউড়া উপজেলার কিছু অংশে শনিবার সকাল ৭ টা থেকে বিকাল সাড়েে তিনটা পর্যন্ত ৬ দিন জরুরী কাজের জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকার ঘোষনা দিয়ে, শনিবার বিকাল সাড়ে পাঁচ এবং রবিবার রাত ১০ টায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করে। তিব্রে তাফদাহে গরমে অতিষ্ঠ হয়ে নিদির্ষ্ট সময়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ না করায় এবং গন গন লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ হয়ে বিক্ষুব্ধ গ্রাহকরা তালা দিয়েছে বড়লেখা পল্লী বিদ্যুৎ কার্যালয়ে। রোববার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পরিস্থিতি শান্ত করতে ঘটনাস্থলে ছুটে যান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ ও বড়লেখা থানার পুলিশ যায়। গ্রাহকরা জানান, জরুরি মেরামত এবং উন্নয়নমূলক কাজের জন্য গত শনিবার থেকে ৬ দিন পর্যন্ত মৌলভীবাজার বড়লেখা উপজেলায় প্রতিদিন সকাল ৭টা থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকার ঘোষণা দেয় পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ। কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ের কয়েক ঘন্টা পরও বিদ্যুৎ সরবরাহ না কারায় প্রচণ্ড গরমে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েন গ্রাহকরা। এতে তারা ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেন। এ কারণে রোববার রাত ৮টায় তাঁরা পল্লী বিদ্যুৎ কার্যালয়ে তালা দেন। খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এ সময় তিনিও গ্রাহকদের সাথে একাত্মতা পোষণ করেন। পরে বিদ্যুৎ চলে আসলে তিনি গ্রাহকদের বুঝিয়ে পল্লী বিদ্যুত কার্যালয়ের তালা খুলে দেন। এ বিষয়ে কথা বলতে পল্লী বিদ্যুতের আঞ্চলিক কার্যলয়ের উপ-মহাব্যস্থাপক (ডিজিএম) সুজিত কুমার বিশ্বাসের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তিনি ফোন ধরেননি। বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইয়াছিনুল হক বলেন, ‘গরমে মানুষ অতিষ্ঠ। এর মাঝে লম্বা সময় ধরে বিদ্যুৎ নেই। রাতে বিক্ষুব্ধ জনতা পল্লী বিদ্যুতের সাব স্টেশন ঘেরাও করে। খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে সেখানে যাই। তাদের শান্ত করে খবর পাই কার্যালয়ে তালা দেওয়া হয়েছে। সেখানে গিয়ে লোকজনকে শান্ত করার চেষ্টা করি। এর মাঝে বিদ্যুৎ চলে আসে। পরে তালা খুলে কার্যালয়ের কর্মচারীর হাতে দেই।