মৌলভীবাজারে স্বামী নোমানের বিরুদ্ধে প্রতারণা ও বিনা অনুমতিতে ২য় বিয়ের অভিযোগ করলেন আয়ারল্যান্ড প্রবাসী স্ত্রী

অক্টোবর ১০ ২০২০, ২১:১০

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারে পুলিশ সুপার বরাবর স্বামীর বিরুদ্ধে প্রতারণা, মানসিক নির্যাতন ও বেআইনীভাবে ২য় বিয়ের অভিযোগ করেছেন আয়ারল্যান্ড প্রবাসী এক স্ত্রী। সর্বশেষ বিনা অনুমতিতে ২য় বিয়ের মাধ্যমে তার সাথে প্রতারণা করেন। নিরুপায় স্ত্রী এসবের প্রতিকার চেয়ে স্বজনদের মাধ্যমে মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগে প্রকাশ- মৌলভীবাজার জেলার রাজনগর উপজেলার বালিসহস্র গ্রামের আয়ারল্যান্ড প্রবাসী মতিবুর রহমান এর কন্যা আয়ারল্যান্ড প্রবাসী নাজমিন বেগম বিগত ১৯ জুলাই ১৭ সালে পার্শ্ববর্তী চকিরাঐ (সুরুপুরা) গ্রামের মোঃ মহিউদ্দিন এর পুত্র আব্দুল্লা আল নোমানের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের কিছুদিন পর তিনি আয়ারল্যান্ডে ফিরে যান। এরপর স্বামী আব্দুল্লা আল নোমান তার কাছ থেকে বিগত২৬/ ১১/২০১৭ইং ৩০ হাজার টাকা, ১০/০১/২০১৮ইং ১০ হাজার টাকা ও ০৫/০৪/২০১৮ইং ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা নেন। তাকে আয়ারল্যান্ড নেওয়ার প্রসেসিং এর জন্য নোমানের কাছে তার পাসপোর্ট চান। কিন্তু তিনি পাসপোর্ট না দিয়ে দেশে ব্যবসা করার জন্য এককালীন ১০ লাখ টাকা চাইলে স্ত্রী নাজমিন বেগম তাতে অপারগতা প্রকাশ করেন। সেইথেকে স্বামী আব্দুল্লা আল নোমান ফোনে স্ত্রী নাজমিন বেগমকে অশালীন ভাষায় গালিগালাজ এবং বিভিন্ন ধরনের ভয়-ভীতি ও হুমকি প্রদর্শনের মাধ্যমে মানসিক নির্যাতন শুরু করেন। তার মানষিক নির্যাতনে অতিষ্ঠ হয়ে গত ২২ শে জুন ২০১৮ইংরেজিতে নিজ বাসায় চাকু  দিয়ে আত্নহত্যার চেষ্টা করেন।পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করান। এমতাবস্থায় একপর্যায়ে পার্শ্ববর্তী ভানুরমহল গ্রামের রজাক মিয়ার কন্যা ইভা বেগমের সাথে গত ২৩ শে সেপ্টেম্বর ২০২০ইং প্রথম স্ত্রীর বিনা অনুমতিতে ২য় বিবাহে আবদ্ধ হয়ে ঘর সংসার শুরু করেন। এরপর থেকে স্বামী আব্দুল্লা আল নোমান ও তার ২য় স্ত্রী ইভা বেগম ফোনে এবং মেসেজের মাধ্যমে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগাল করে আয়ারল্যান্ড প্রবাসী স্ত্রী নাজমিন বেগমকে মানসিক নির্যাতন অব্যাহত রাখেন। তারা হুমকি দিয়ে বলেন, কোনদিন দেশে আসলে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে আয়ারল্যান্ড প্রবাসী স্ত্রী নাজমিন বেগম ও তার পিতৃপরিবারের সদস্যদেরকে প্রাণে হত্যা করে লাশ গুম করে ফেলবেন। আয়ারল্যান্ড প্রবাসী স্ত্রী নাজমিন বেগম লোকমারফতে জেনেছেন ২য় স্ত্রী ইভা বেগমের সাথে আব্দুল্লা আল নোমানের পূর্ব থেকেই প্রেমের সম্পর্ক ছিল- যা নাজমিন বেগমের সাথে বিয়ের সময় আব্দুল্লা আল নোমান গোপন রাখেন। নাজমিন বেগমের সাথে বিয়ের সময় তার পিতামাতা আব্দুল্লা আল নোমানের চাহিদানুযায়ী উপহার স্বরুপ প্রায় ৭ লাখ টাকার মালামাল প্রদান করেন- যা এখনও আব্দুল্লা আল নোমানের বাড়িতে রয়েছে। আইনানুযায়ী নাজমিন বেগমের অনুমতি ছাড়াই আব্দুল্লা আল নোমান বেআইনীভাবে ইভা বেগমের সাথে ২য় বিয়েতে আবদ্ধ হবার মাধ্যমে নাজমিন বেগমের সাথে প্রতারনা করেছেন। তাই, স্বামী আব্দুল্লা আল নোমান ও তার ২য় স্ত্রী ইভা বেগমের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনপূর্বক ন্যায়বিচার প্রত্যাশায় আয়ারল্যান্ড প্রবাসী স্ত্রী নাজমিন বেগম মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার বারাবর ওই লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগ প্রসঙ্গে অভিযুক্ত স্বামী আব্দুল্ল আল নোমানের বক্তব্য জানার জন্য ৬ অক্টোবর বেলা ১২টার দিকে এ প্রতিনিধিসহ কয়েকজন সাংবাদিক সরেজমিন চকিরাঐ (সুরুপুরা) গ্রামে তার পৈত্রিক বাড়ীতে গেলে তিনি বলেন এসব অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। আজই বিকালে আপনাদেরকে সব ডকুমেন্টের ফটোকপি প্রদান করবো। আমাকে আয়ারল্যান্ড নেয়ার চুক্তিতে তাকে বিয়ে করেছিলাম। সে আমাকে আয়ারল্যান্ড নেয়নি তাই আমি তাকে তালাক দিয়ে ২য় বিয়ে করেছি”।আমার কাছে ডকুমেন্ট আছে সব ডকুমেন্ট ফটোকপি করে আপনাদেরকে দেবো। কিন্তু এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন চুক্তি পত্র দেখাতে পারেন নি। তবে তার দ্বিতীয় স্ত্রী ইভা বেগমের সাথে পূর্ব পরিচয় ছিল বলে স্বীকার করেন।।
  •