ধর্ষণ ঘটনায় শ্লীলতাহানি মামলা রেকর্ড করেছে মৌলভীবাজার মডেল থানা !

ফেব্রুয়ারি ২০ ২০২১, ১৮:২৫

নিজস্ব প্রতিনিধি:  বুদ্ধী প্রতিবন্ধী নারী ধর্ষণের ঘটনায় শ্লীলতাহানির মামলা রেকর্ড করে জনসেবার একটি উজ্জল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে মৌলভীবাজার মডেল থানা! মৌলভীবাজার মডেল থানার এহেন ন্যাক্কারজনক ভূমিকায় ক্ষুব্ধ বুদ্ধী প্রতিবন্ধী নারীর ছোটভাই। ১৫ ফেব্রুয়ারী সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক প্রতিকার চেয়ে পুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে প্রকাশ- শহরের গোবিন্দশ্রী এলাকার দবির আহমদ (ছদ্মনাম) এর আপন বড়বোন প্রতিবন্ধী নাইওর বেগম (ছদ্মনাম) গত ১০ ফেব্রুয়ারী বিকেলে, প্রতিবেশী কয়েছ মিয়ার আপন ভাগ্না, শহরের দরগা মহল্লার মৃতঃ কালু মিয়ার ভাড়াটিয়া, মৃতঃ সোহরাব উল্যার পুত্র আবেদুল ইসলাম (রানা) কর্তৃক ধর্ষিত হয়। ধর্ষিতাকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্ত্তি করা হয় এবং দবিরকে সাথে নিয়ে তার দুলাভাই জায়াদ হোসেন (ছদ্মনাম) মৌলভীবাজার মডেল থানায় মামলা করতে যান।
ওসি (অপারেশন) বদিউজ্জামান তার এজাহারটি পড়ে বলেন, ‘ভাই থাকতে দুলাভাই বাদী কেন ? আর, এজাহারটা সঠিকভাবে লিখা হয়নি। দুলাভাইয়ের বদলে ভাই বাদী হয়ে থানার রাইটারকে দিয়ে সঠিকভাবে এজাহার লিখিয়ে আনুন, আমি বলে দিচ্ছি’। সে অনুযায়ী থানার রাইটার ভাই দবিরকে বাদী করে এজাহার লিখে ওসি (অপারেশন) এর কাছে পাঠান। ওসি (অপারেশন) এজাহারে ভাই দবিরের স্বাক্ষর নিয়ে তাদেরকে বিদায় দেন। পরবর্তীতে দবির আদালত থেকে মামলার অনুলিপি সংগ্রহ করে দেখেন, ‘ধর্ষণ মামলার স্থলে শ্লীলতাহানির মামলা’ রেকর্ড করা হয়েছে। এতেকরে দবির বুঝতে পরেন, যে কারণেই হোক তার সরলতার সুযোগে সুকৌশলে শ্লীলতাহানির মামলা রেকর্ড করে ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেয়া হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে দবির তীব্র প্রতিবাদ এবং সম্ভব হলে মামলাটির মিথ্যা বিষয়বস্তু পরিবর্তন পূর্বক প্রকৃত বিষয়বস্তু সংযোজনের ও ওসি (অপারেশন) বদিউজ্জামানের এহেন কর্মকান্ডের দৃষ্টান্তমূলক প্রতিকার কামনা করেছেন।
অভিযোগ প্রসঙ্গে বক্তব্য চাইলে ওসি (অপারেশন) বদিউজ্জামান বলেন- অভিযোগটি সত্য নয়। আমি ধর্ষণ মামলার স্থলে শ্লীলতাহানির মামলা এফআইআর করতে যাবো কেন ? ভিকটিম পুরোপুরি বুদ্ধী প্রতিবন্ধী নয়, অনেক কথাই বলতে পারে। আমার কাছে হাসপাতালে দেয়া ভিকটিমের জবানবন্দির ভিডিও আছে। চাইলে দেখাতে পারবো। ওসি স্যারও বিষয়টা জানেন। আদালতেও ভিকটিম ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে।

  •